যশোরের শার্শায়

অবৈধ নিয়োগে সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক

শনিবার, ১১ মে ২০১৯ | ২:০১ অপরাহ্ণ |

অবৈধ নিয়োগে সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক
প্রতিনিধির পাঠানো তথ্য ও ছবিতে ডেস্ক রিপোর্ট

যশোরের শার্শা সরকারী পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলাম অবৈধ ভাবে প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ পেয়ে বর্তমানে এখন সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

বিধি বহির্ভূত ভাবে নিয়োগ কর্তৃপক্ষ এমএ পাশ সনদ পত্র দিয়ে নিয়োগ না দিয়ে মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে বিএ পাশ সনদ পত্র দিয়ে প্রধান শিক্ষক পদে জালজালিয়াতির মাধ্যমে নিয়োগ দেওয়ার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগে প্রকাশ ২০১৩ সালের শার্শা সরকারী পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের শূন্য পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মডেল প্রকল্পের শর্ত অনুযায়ী এমএ পাশ শিক্ষক নিয়োগের বিধান রয়েছে। সে মোতাবেক স্কুলের ম্যানিজিং কমিটি প্রধান শিক্ষক নিয়োগের শূন্য পদে এমএ পাশ শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন জাতীয় পত্রিকায়। শর্ত অনুযায়ি প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলাম দারুল এহসান প্রাইভেট বিশ্ব বিদ্যালয়ের বারিধারা ক্যাম্পাস হতে এমএ পাশ সনদ পত্র সংগ্রহ করেন যা
ইউজিসি কর্তৃক অননুমোদিত প্রতিষ্ঠান । এমএ পাশ সনদ পত্রটি জালিয়াতি প্রতীয়মান হওয়ায় বিএ পাশ সনদ পত্রের মাধ্যমে ২০১৩ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি মোটা অংকের উৎকোচের বিনিময়ে নিয়োগ কর্তৃপক্ষ নিয়োগ দিয়েছেন। যা পরবর্তিতে তার চাকুরী এমপিও করানোর জন্য তৎকালিন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মডেল প্রকল্পের শর্ত না মেনে সহিদুল ইসলামের চাকুরী সমুদয় কাগজ পত্র শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে পাঠিয়ে দেন। শার্শা সরকারি পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি এলাকার ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। জাল জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধ ভাবে প্রধান শিক্ষকের নিয়োগের বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার অভিভাবক মহলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এরই মধ্যে প্রধান শিক্ষক প্রায় ৭ বছর দায়িত্ব পালন অতিক্রান্ত করেছেন। এছাড়া গত ৭ বছরে নিয়োগের পর থেকে বিদ্যালয়ের নিজস্ব তহবিল থেকে সেচ্ছচারিতার মাধ্যমে ভূয়া ভাউচার ও জাল স্বাক্ষর করে ১২ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা তসরুপের ঘটনায় ধরা পড়ে অভ্যন্তরীন এক অডিটে।

২০১৬ সালে বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ হয়েছে। প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম দূর্ণীতি , অবৈধ নিয়োগ, জালিয়াতির বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার তদন্ত সম্পন্ন করে জেলা প্রশাসক সহকারি কমিশনার শিক্ষা ও কল্যান শাখা যশোর কর্মকর্তাকে ৪৭ পাতার একটি পূর্নাঙ্গ প্রতিবেদন প্রেরণ করেন। প্রতিবেদনটি সহকারি কমিশনার শিক্ষা ও কল্যান শাখা হতে গত ১২ জুলাই-২০১৫ সালে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার নিকট প্রযোজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পত্র প্রেরণ করেন। যার স্মারক নং ০৫.৪৪.৪১০০.০৮.০১.০১৩.২০১৫-৫৮৮ তারিখ ১২/০৭/২০১৫।

এক বেরসিক অভিভাবক রফিকুল এ প্রতিনিধিকে বলেছেন শিক্ষাই জাতীর মেরুদন্ড হয় তাহলে জালজালিয়াতীর মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া প্রধান শিক্ষক সহিদুল ইসলাম আমাদের সন্তানদের কি শিক্ষা দেবেন। এ ছাড়া তদন্ত প্রতিবেদনে স্পষ্ট ভাবে তদন্ত কর্মকর্তা উল্লেখ করেছেন সহিদুল ইসলাম ১৯৮৫ সালে এসএসসি পাশ করেছেন। ১৯৯৩ সালে ৫বছর পর এইচএসসি পাশ করেছেন। সরকারী বিধি মালায় ৫ বছর বিরতি করনে একজন ছাত্রকে নিয়মিত ছাত্র বলার কোনো বিধান নেই। এছাড়া ২০০৯ সালে ইংরেজী বিষয়ে বারিধারা ক্যাম্পাস হতে এমএ পাশ করেন। যা ইউজিসি কর্তৃক অননুমোদিত। তার নিয়োগের বিষয়টি জন সমক্ষে প্রশ্ন বিদ্ধ হয়ে উঠেছে।

এলাকাবাসি ও অভিভাবকদের দাবি ঐতিহ্যবাহি শার্শা সরকারি পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়রে এমন অযোগ্য,অদক্ষ ও অনঅভিজ্ঞ শিক্ষক আমরা চাই না। এলাকার সচেতন অভিভাবকদের দাবি একটি সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষকের যোগ্যতা প্রশ্ন বিদ্ধ হওয়ায় তাকে অপসারণ করা উচিৎ। শার্শা সরকারি পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিয়োগ মডেল প্রকল্পের বিধি মোতাবেক না হওয়ায় তার নিয়োগ অবশ্যই অবৈধ।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডল এ প্রতিনিধিকে বলেন অবৈধ ভাবে শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টি ২০১৫ সালে তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। বিষয়টি শিক্ষা মন্ত্রণালয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

সর্বশেষ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় থেকে গত ৩০ শে এপ্রিল প্রধান শিক্ষক কর্তৃক ঝাড়ুদারের মোবাইল চুরির বিষয়টি তদন্ত করার জন্য ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com