কবি ফারজানা আহমেদ রচিত “একটি স্বপ্নরে গল্প” ২য় পর্ব পড়ুন

মঙ্গলবার, ০৩ এপ্রিল ২০১৮ | ৭:৩৬ অপরাহ্ণ |

কবি ফারজানা আহমেদ রচিত  “একটি স্বপ্নরে গল্প” ২য় পর্ব পড়ুন
আগামী শনিবার পড়বেন এই গল্পের ২য পর্ব

(দ্বিতীয় পর্ব)”

“একটি স্বপ্নরে গল্প”

লেখক: ফারজানা আহমেদ

মেয়েটি বললো, সে অনেক কথা।শুধু এটুকু বলছি – আমি একজনকে ভালবাসতাম।সেও আমাকে প্রাণের চেয়েও ভালবাসতো।আমাদের ভাগ্যে ছিলনা মিলন, তাই আজ এই অবস্থা।
আমার আগ্রহ আরো বেড়ে গেল।মনে মনে বললাম, আমাকে শুনতে হবে ওর গল্প।মেয়েটিকে বললাম,আপনার গল্পটা শুনতে ভীষণ ইচ্ছা  হচ্ছে।যদি শোনান, তবে ভীষণ খুশি হবো।
মেয়েটি বললো,তার আগে আপনি আমাকে তুমি করে বলুন।
আমি বললাম, আচ্ছা বলো তোমার গল্পটা।
এরই মধ্যে আকাশে মেঘ গর্জন করে উঠল।বিদ্যুৎ চমকাচ্ছে।আমার কবরের মাটি বৃষ্টি এলে ধুয়ে যাবে।যাক ধুয়ে আমার কোন সমস্যা নেই।আমি এখন এই মেয়েটির গল্প শুনবো।
মেয়েটি আকাশের দিকে তাকিয়ে বললো,আপনার কবরটার জন্য চিন্তা হচ্ছে।
আমি বললাম কেন?উপরের মাটিগুলো ধুয়ে যাবে তাই?
মেয়েটি বললো হুম্মম।
এইতো দুদিন আগে প্রচন্ড বৃষ্টি হলো। একটা কবরের মাটি সরে গিয়েছিল।সেই কবরে যে লোকটার লাশ ছিল, তার ছেলে এসে কোদাল দিয়ে অত রাতে কবরের মাটি ঠিক করলো।ছেলেটি না এলে কি অবস্থা হতো বলুনতো।
আমি বললাম, থাক থাক আর বলোনা।
এবার তোমার গল্পটা বলো।
মেয়েটি বললো, আমার গল্পটি বিশাল বড়।আপনি যদি শুনতেই চান তবে ছোট করে বলি।
আমার নাম আয়শা।লেখা পড়ায় খুব ভাল।মা বাবা আমার উপর খুব খুশি কারণ প্রতি বছর ক্লাশে প্রথম হচ্ছি।আমি সেবার ক্লাশ এইট থেকে নাইনে উঠি।সেবার বাবা মা সিদ্ধান্ত নিল আমাকে প্রতিটি সাবজেক্টের জন্য কোচিং করাবে।সেই মতো আমি প্রতিদিন স্কুলের পর দুই/ তিনটি করে কোচিং করে যাচ্ছি।কোন সাবজেক্ট সপ্তাহে দুইদিন আবার কোনটি তিনদিন।
আমি বললাম,আসল গল্পটা বলো।
ও বললো, সেটাই বলছি। আপনি শুনে যান।এতো অস্থির হলে বলবো কিভাবে?
আবার বলতে লাগলো মেয়েটি।
আমার আর কোন ইন্টারেস্ট নেই ওর গল্প শোনার।
আয়শা নামের মেয়েটি বলেই চললো,আমার বয়স তখন পনের।দেখতেও বেশ সুন্দর ছিলাম।পাড়ার ছেলেরা দীপিকা বলে ডাকতো।
আমি বললাম, দীপিকা বুঝি তোমার আর একটি নাম?
ও আশ্চর্য হয়ে বললো, আপনি সিনেমা দেখেন না? দীপিকা হলো হিন্দি সিনেমার নায়িকা।আমার চেহারা দীপিকার মতো।ফিগারটাও ওর মতো।তবে দীপিকা আমার চেয়ে অনেক লম্বা।
আমি বললাম, বুঝেছি এবার গল্পটা বলো।
আয়শা বললো,আমার অংকের স্যার ছিলেন ভীষণ রাগী।অংক মেলাতে না পাড়লে, একটা অংকের জায়গায় দশটা অংক করতে দিতেন।এমনি একদিন প্রচন্ড বৃষ্টি।মা আর আমি রিকশা না পেয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ভিজে গেলাম।তারপর স্যারের বাসায় না গিয়ে বাসায় চলে এলাম।পরদিন অংক ক্লাশে যেতেই স্যার জিঙ্গেস করলেন, কিরে গতকাল আসিসনি কেন?
আমি বৃষ্টির কথাটা বলতেই স্যার রেগে আমাকে যাচ্ছে তাই বললেন।রেগে ছিলেন তাই একটা কঠিন অংক দিলেন আমাকে।আমি অনেক চেষ্টা করেও অংকটা মেলাতে পারলাম না।স্যার আমাকে একের পর এক অংক দিচ্ছেন আর আমি কিছুতেই মেলাতে পারছি না।
এবার স্যার থামলেন বললেন, কান ধরে দাঁড়িয়ে থাকতে।
আমিতো কিছুতেই কান ধরবো না।কিন্তু স্যার গো ধরলেন কান ধরতেই হবে।যাক, শেষ পযন্ত অল্প কিছুক্ষণের জন্য কান ধরলাম।
আমি বললাম,আয়শা তেমার প্রেম কি ওই ক্লাসের ছাত্রের সাথেই হয়েছিল?
আয়শা বললো, না ওই অংক স্যারের সাথে।
আয়শা বললো,তখন আমি ক্লাশ টেনে পড়ি।
আমিতো অবাক আয়শার কথা শুনে। এটা কি হতে পারে!
আমি আবার আয়শাকে জিঙ্গেস করলাম, কার সাথে তোমার ভালবাসা হলো?
আয়শা বললো, অংক স্যারের সাথে।আয়শা বললো, প্রথমে আমিও বুঝতে পারিনি।যতই দিন যাচ্ছিল আমি অংক স্যারের মুখ ছাড়া কিছুই দেখতে পেতাম না।
অংক স্যারের নাম মাইনুল ইসলাম।
আমি জিঙ্গেস করলাম,বয়স কত? দেখতে কেমন? বিবাহিত কি না?
আয়শা বললো,সব বলছি।ওর বয়স চল্লিশ থেকে পয়তাল্লিশের মধ্যে হবে।দেখতে খুব সুন্দর না, আবার কুৎসিত না।বিবাহিত দুই সন্তানের জনক।
আমি বললাম, তাহলে তুমি কি দেখে প্রেমে পড়লে?
আয়শা বললো, সেটা আমি জানিনা।তবে ওকে ভীষণ ভালবেসে ফেললাম।মাইনুলকে দেখেও বুঝতাম ও আমাকে খুব ভালবাসে।
আয়শা বললো, একদিন স্কুলে মাইনুলকে বললাম, মানুষের মন কি বেঁধে রাখা যায়?
মাইনুল বললো, না।তবে কেন একথা বলছো?
আমি বললাম, আমি আপনাকে ভালবাসি।
মাইনুল বললো, জানি।
আমি বললাম, আপনিও আমাকে ভালবাসেন তাইনা স্যার?
মাইনুল আনমনা হয়ে প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে দ্রুত পায়ে চলে গেলন।
 (গল্প চলমান)
                                                          আগামী শনিবার পড়বেন এই গল্পের ২য পর্ব

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com