খালেদার তথাকথিত জন্মদিন বনাম রাজনৈতিক শিষ্টাচার

বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮ | ১০:০৯ পূর্বাহ্ণ |

খালেদার তথাকথিত জন্মদিন বনাম রাজনৈতিক শিষ্টাচার
ছবি: অনলাইন

সংবাদ গ্যালারি ডেস্ক: সহমর্মিতা প্রকাশ মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি। প্রতিবেশীর ওপর শোকের কালো আঁধার নেমে এলে কোনও সুস্থ, বিবেকবোধ-সম্পন্ন মানুষ সুখ-সাগরে ভাসতে পারে না, উল্লাসে ফেটে পড়তে পারে না। এটাই আমাদের সামাজিক, মানবিক রীতি। আগস্ট মাসটির নাম উচ্চারিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বাঙালী-হৃদয় যন্ত্রণাদগ্ধ হয়, শোকে মুহ্যমান হয় বাঙালী-আত্মা। হৃদয়পটে ভেসে ওঠে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী, স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম। ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ দিনটিতে সংঘটিত হয়েছিল মানব ইতিহাসের বর্বরতম হত্যাকাণ্ড। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এদিনে সপরিবারে হত্যা করা হয়। দিনটি বাঙালি জাতির কাছে শোকের দিন। পরিতাপের বিষয় হচ্ছে, ১৯৯১ সালের নির্বাচনের পর ক্ষমতায় গিয়ে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া তৎকালীন বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য ও হুইপ জামালের পরামর্শে রাজকীয়ভাবে ১৫ আগস্ট কেক কেটে জন্মদিন পালন করা শুরু করেন । প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে কখনও জানা যায়নি বা শোনা যায়নি, ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন।

খালেদা জিয়া পৃথিবীর একমাত্র নারী, যিনি ১৯৪৪ থেকে ১৯৪৯; এই কয় বছরের মধ্যে পাঁচবার জন্মগ্রহণ করেছেন। কাউকে হেয় করার জন্য বা কাউকে ছোট করার জন্য এ তথ্যটি নয়। খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত বিভিন্ন কাগজপত্র এবং সংবাদ মাধ্যমের বিভিন্ন রিপোর্টে সেই তথ্যগুলো উঠে এসেছে। বিভিন্ন সূত্রে দেখা গেছে, ১৯৮৪ সালে খালেদা জিয়ার বাবা এস্কান্দার মজুমদার একটি সাপ্তাহিক পত্রিকায় সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন আমার তৃতীয় মেয়ে হচ্ছে খালেদা। খালেদার জন্ম ১৯৪৫ সালের ৫ সেপ্টেম্বর, একটি ঐতিহাসিক দিনে, যেদিন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়। ১৯৯১ সালের ২০ মার্চ দৈনিক বাংলা পত্রিকায় সরকারি সংবাদ সংস্থা বাসস থেকে পাঠানো তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার জীবনী ছাপা হয়। এতে উল্লেখ করা হয় যে খালেদা জিয়ার জন্মদিন ১৯৪৫ সালের ১৯ আগস্ট। ম্যাট্রিক পরীক্ষার মার্কশিট অনুসারে খালেদা জিয়ার জন্মদিন ১৯৪৬ সালের ৫ সেপ্টেম্বর। বিয়ের কাবিননামা অনুসারে জন্মদিন ১৯৪৪ সালের ৯ আগস্ট।

webnewsdesign.com

তবে ২০০০ সালের ভোটারের তথ্য বিবরণী ফরমে খালেদা জিয়া উল্লেখ করেন যে তার জন্মদিন ১৯৪৬ সালের ১৫ আগস্ট। জাতীয় পরিচয় পত্রে জন্মসাল এবং তারিখ বদলিয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি বিদ্বেষ ছড়ানোসহ কটাক্ষ করার জন্য। লাখো শহীদের রক্তে কেনা আমাদের প্রিয় বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছিল যেই মহান নেতার কারণে তাঁর মর্মন্তুদ প্রয়াণ দিবসে কোনো রাজনৈতিক দলের নেতা বা নেত্রী মিথ্যে জন্মোৎসব পালনের পসরা সাজিয়ে বসেন। খালেদা জিয়ার মিথ্যা জন্মোৎসবকে বাংলার আবাল-বৃদ্ধ ঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করলেও তিনি সেই ঘৃণ্য নিকৃষ্ট অপকর্ম এখনও অব্যাহত রেখেছেন। জাতির জনকের মর্মান্তিক মৃত্যুদিনে খালেদার ভুয়া জন্মদিন উদযাপনকে খোদ তার নিজ দলের নেতারা অনেকবার কড়া সমালোচনা করেছেন, তবু তার বোধোদয় হয়নি। খালেদা জিয়ার পরিবার রক্ষা পেয়েছিল জাতির জনকের জন্য। এখন সেই খালেদা জিয়াই বঙ্গবন্ধুর মৃত্যু দিনে জন্মদিন পালন করেন। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে এ ধরনের অপকর্ম শুধু বিকৃত মানসিকতার পরিচায়ক।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com