জীবন সঙ্গী করে কাটিয়ে দিতে চায়: বাংলার অসংখ্য হিন্দু সম্প্রদায়ের কে এই গোপাল

মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট ২০১৯ | ২:৫৮ অপরাহ্ণ |

জীবন সঙ্গী করে কাটিয়ে দিতে চায়: বাংলার অসংখ্য হিন্দু সম্প্রদায়ের কে এই গোপাল
বাংলার অসংখ্য হিন্দু সম্প্রদায়ের পরিবারে নিত্য পুজো করা হয় গোপালের

বাংলার অসংখ্য হিন্দু সম্প্রদায়ের পরিবারে নিত্য পুজো করা হয় গোপালের। কেন তারা গোপালের পুজো করে থাকেন, কী উদ্দেশ্য নিয়ে বাড়িতে গোপাল প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, তার সঠিক কোনও কারণ জানা যায়নি। গোপালের নিত্য পুজো হয় এমন বহু পরিবারে অনুসন্ধান করে কিছু মতামত জানা গেছে, যেগুলি তুলে ধরছি এখানে।

মতামতগুলি পাওয়া গিয়েছে হিন্দু সম্প্রদায়ের পরিবারের মহিলাদের তরফ থেকে, আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক উজ্জ্বল রায় জানান, আজকাল প্রায় সব হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতেই দেখি গোপালের পুজো করা হয়। সকলের দেখা দেখি আমারও ইচ্ছে হল বাড়িতে গোপালের পুজো করি। আমাদের পাড়ার একজন হরিদ্বারে গিয়েছিল। ওকে বলেছিলাম আমার জন্য একটা গোপাল এনে দিতে। এনে দিয়েছিল সেটাই পুজো করি। এ ছাড়া আর কোনও উদ্দেশ্য নেই। বেশ ভালোই লাগে। ভোগটোগের কোনও ঝামেলা নেই। রোজ একটু নকুলদানা আর জল দিই। গোপাল এতেই খুশি।


আমার শ্বশুরবাড়ির তরফ থেকে বংশানুক্রমে গোপালের পুজো হয়ে আসছে। শাশুড়িমাতা বেঁচে থাকতে সারাদিন রাতে চারবার সেবা দিতেন গোপালের। উনি গত হওয়ার পর ওই কাজটা আমিই করে থাকি। আমাদের গোপাল পাঁচ পুরুষের। আমার পর পর তিনটে মেয়ে। একটা ছেলের বড়ো ইচ্ছা ছিল, হল না। আমার ছোট বোন একবার কাশী গিয়েছিল বেড়াতে। ওকে একটা গোপাল এনে দিতে বলেছিলাম। এনে দিয়েছে। গোপালকে আমি ছেলের মতো দেখি।

গোপাল আমার ছেলের পরিপুরক। পুজোর সময় আগে গোপালের জামাকাপড় কিনি, পরে আমাদের। বিয়ের পর দুটো বাচ্চা নষ্ট হয়ে গেল। ডাক্তার বলেছে হওয়ার আর আশা নেই। তাই গোপালকেই সন্তানজ্ঞানে সেবা করি। বিয়ের পর থেকেই স্বামীর সঙ্গে মনের আর মতের মিল নেই। বাচ্চাকাচ্চাও হয়নি। তাই গোপালকে নিয়ে আছি। গোপালই আমার স্বামী-পুত্র সব। এখন মনে কোনও কষ্ট নেই। অনেক চেষ্টা করেও আমার বিয়ে হয়নি। বিয়ে না হওয়ার মতো কোনও কারণও কিছু ছিল না। তবুও হল না। কেন হল না জানি না। বয়েসও তো অনেক হল। কোনও জীবনসঙ্গী জুটল না কপালে। গোপালকে সঙ্গী করেই জীবনটা কাটিয়ে দিতে চাই। বরটা আমার বেয়াড়া। মনের মতো হয়নি। আমার সঙ্গে কোনও কথা বলে না, শুনতেও চায় না। গোপালকে এনেছি, যা কিছু সুদু দুখু মনের কথা গোপালকেই বলি। এখন বরের জন্য মানসিক কষ্টটা আর নেই।

মন্তব্য করতে পারেন...

comments



ইবির রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সাবেক সভাপতির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ…

প্রধান কার্যালয়ঃ বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com