নিরীহ মানুষকে হয়রানি করবেন না: পুলিশ সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী

মঙ্গলবার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৮:৩৬ পূর্বাহ্ণ |

নিরীহ মানুষকে হয়রানি করবেন না: পুলিশ সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রী
ছবি: অনলাইন

দেশের সাধারণ জনগণকে হয়রানি না করতে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, নিরীহ জনগণকে কোনো ধরনের হয়রানি করবেন না। মানুষ হয়রানির শিকার হলে, বিপদে পড়লে তাদের সহযোগিতা করুন। সাধারণ মানুষকে রক্ষা করা আপনাদের কর্তব্য- এটাই জনগণ আপনাদের কাছ থেকে প্রত্যাশা করে।

রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে সোমবার ‘পুলিশ সপ্তাহ-২০১৯’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।প্রধানমন্ত্রী বলেন, শান্তি, নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলার প্রতীক বাংলাদেশ পুলিশ। আমাদের পুলিশ বাহিনীকে হতে হবে জনবান্ধব। পুলিশের ওপর জনগণ যেন আস্থা রাখতে পারে সে লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। সন্ত্রাস দমন, জঙ্গি নির্মূল ও মাদক নিয়ন্ত্রণে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। জঙ্গি দমনে বাংলাদেশে পুলিশ এখন বিশ্বদরবারে রোল মডেল।

webnewsdesign.com

তিনি বলেন, একজন সন্ত্রাসী সন্ত্রাসীই। সন্ত্রাসীদের কোনো ধর্ম নেই, বর্ণ নেই, দেশও নেই- কিছুই নেই। কাজেই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মাদক নির্মূলে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। সেই সঙ্গে নিরাপদ সড়ক নিয়ে মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরি করতে হবে। পুলিশ সদস্যদের অবসরকালীন রেশন দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

রাজারবাগ পুলিশ লাইনস মাঠে বর্ণাঢ্য প্যারেডের মধ্য দিয়ে ‘পুলিশ সপ্তাহ-২০১৯’ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিভিন্ন পুলিশ ইউনিটের সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত ১০টি কন্টিনজেন্ট ও পতাকাবাহী দল, সুসজ্জিত বাদক দল ও অশ্বারোহী দলের নয়নাভিরাম কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও অভিবাদন গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) রাজারবাগ পৌঁছলে এক দল পুলিশ সদস্য তাকে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা ও ঘোড়ায় চড়ে অভিবাদন জানিয়ে মঞ্চ পর্যন্ত নিয়ে আসেন। এ সময় প্যারেড কমান্ডার পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানার নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন জানায় বাংলাদেশ পুলিশের সুসজ্জিত প্যারেড কন্টিনজেন্টস।

কুচকাওয়াজ শেষে রাজারবাগে পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতি (পুনাক)-এর স্টল পরিদর্শন এবং পুলিশ সদস্যদের কল্যাণ সভায় অংশগ্রহণ করেন শেখ হাসিনা।

২০১৮ সালে পুলিশবাহিনীর সদস্যদের অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ৪০ জনকে ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)’, ৬২ জনকে ‘রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম)’ দেয়া হয়। এ ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য ১০৪ জনকে ‘বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম)-সেবা’ এবং ১৪৩ জনকে ‘রাষ্ট্রপতির পুলিশ পদক (পিপিএম)-সেবা’ প্রদান করা হবে।

জঙ্গি ও সন্ত্রাস মোকাবেলায় ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের ইনসপেক্টর মরহুম মো. জালাল উদ্দিন পিপিএম ও ডিএমপির কনস্টেবল মরহুম মো. শামীম মিয়াকে বিপিএম মরণোত্তর পদক দেয়া হয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে অনেক সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগের পাশাপাশি মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগও হয়। ২০১৩, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট অগ্নিসন্ত্রাসে নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করে। সেই দুর্যোগের সময় পুলিশবাহিনী বলিষ্ঠ ভূমিকা নিয়েছিল এবং সে অবস্থা মোকাবেলা করেছিল। পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে অগ্নিসন্ত্রাসীদের হাতে জীবন দিয়েছিলেন। আমি তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করি।

প্রধান অতিথির ভাষণে শেখ হাসিনা পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা দেশের বিভিন্ন পরিবার থেকে এসেছেন। মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা মানে আপনাদের পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা করা আপনাদের দায়িত্ব। শান্তিরক্ষা, জঙ্গি দমন ও মাদক নির্মূলে পুলিশের ভূমিকার প্রশংসা করে তা অব্যাহত রাখার আহ্বানও জানান।

তিনি বলেন, শান্তিরক্ষা মিশনে বহির্বিশ্বে প্রশংসা কুড়িয়েছে পুলিশ। সড়ক নিরাপদ করতে পুলিশকে সচেষ্ট হওয়ার নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, সড়ককে নিরাপদ করতে হবে। এ জন্য গণসচেতনতা গড়ে তুলতে পুলিশকে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে হবে। যখন-তখন ছুটে গিয়ে রাস্তা পার না হওয়ার বিষয়ে মানুষকে সচেতন করতে হবে। সেই সঙ্গে নিরাপদ সড়ক গড়ে তুলতে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করতে হবে।

বিভিন্ন ক্ষেত্রে পুলিশের ভূমিকার প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে এখন দশ লাখের ওপর শরণার্থী, পুলিশ তাদের নিরাপত্তা দিচ্ছে। নারী পুলিশরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে কল করে ইমারজেন্সি পুলিশি সেবার মাধ্যমে মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। ডিজিটাল পদ্ধতি, অ্যাপ ব্যবহার করায় সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করা সহজ হয়েছে। মানি লন্ডারিং, সাইবার ক্রাইম দমনে পুলিশের দক্ষতা বৃদ্ধি পাচ্ছে, এটা অব্যাহত রাখতে হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখায় পুলিশবাহিনীকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।

পুলিশের জন্য তার সরকারের পদক্ষেপ তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর ১১ হাজার ৯০০টি পদ সৃষ্টি করেছি। ২০০৮ সালের পর আমরা প্রায় ৯১ হাজার পুলিশের পদ সৃষ্টি করেছি ও নিয়োগ দিয়েছি। কর্মসংস্থানের পাশাপাশি মানুষের সেবা পাওয়া সহজ হয়েছে। পদোন্নতির ক্ষেত্রে জটিলতা অবসান হয়েছে। আমরা পুলিশকে বহুমুখীভাবে গড়ে তুলেছি, যাতে সর্বক্ষেত্রে মানুষ সুবিধা পায়। আমরা নতুন নতুন বিভাগ গড়ে তুলেছি। নতুন থানা, রেঞ্জ, র‌্যাব কার্যালয় গড়ে তুলেছি মানুষকে সেবা দেয়ার জন্য। তাছাড়া পুলিশ সদস্যদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য সারা দেশে ৩০টি ট্রেনিং সেন্টার খোলা হয়েছে। আমরা পুলিশ সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেয়ার ব্যাপারে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।

পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট গঠনের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই, শিল্প পুলিশ, টুরিস্ট পুলিশসহ পুলিশের বিভিন্ন বিশেষায়িত ইউনিট গড়ে তুলেছি। তাছাড়া এন্টি টেরোরিজম ও জঙ্গি-সন্ত্রাস দমনে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিট গঠন করা হয়েছে।

পুলিশ সদস্যদের কল্যাণে বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পুলিশ সদস্যদের কল্যাণের জন্য তহবিল গঠন করেছিলাম। দায়িত্ব পালনের সময় যারা মৃত্যুবরণ করেন, তাদের জন্য ৮ লাখ ও যারা আহত হন তাদের জন্য চার লাখ টাকা দেয়া হবে। জনসংখ্যার অনুপাত ও ভৌগোলিক অনুপাতে পুলিশের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হবে। তার পাশাপাশি দক্ষতা বৃদ্ধি, যানবাহন, প্রশিক্ষণসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। অবসরকালীন রেশন দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, পুলিশের মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়াও মন্ত্রিসভার সদস্য, সংসদ সদস্য, উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা, বিভিন্ন সংগঠনের নেতা এবং নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরাও উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com