নড়াইলের আওয়ামী লীগে গ্রুপিং থাকবেনা- এমপি মাশরাফি

মঙ্গলবার, ২৯ অক্টোবর ২০১৯ | ১:৩৩ অপরাহ্ণ |

নড়াইলের আওয়ামী লীগে গ্রুপিং থাকবেনা- এমপি মাশরাফি
প্রতিনিধির পাঠানো তথ্য ও ছবিতে ডেস্ক রিপোর্ট

‘আমি শপথ নিয়েছি দলে গ্রুপিং করব না। গ্রুপিং রাজনীতি করা আমার পক্ষে সম্ভব না। যারা দুর্নীতি, ইয়াবাখোর, টেন্ডারবাজ, সন্ত্রাসকে প্রশ্রয় দেবে না, আমি তাদের পক্ষে। আমি ভালোর পক্ষে, আমি উন্নয়নের পক্ষে। দলের গ্রুপিং থেকে আমাকে দ‚রে রাখবেন।’এছাড়াও নদী ভাঙ্গন এলাকায় ছুটে যান এমপি, মাশরাফি, বিন মুর্তজা।

আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়, জানান, জানা যায় এমন একটা ব্যাপার আমাদের নেতা মাশরাফী বিন মোর্তজা নড়াইলে আসেন,। মোটরসাইকেল যোগে ভোরের শীতল হাওয়া তুচ্ছ করে রওনা হয় সেই নড়াইলের শালনগর ইউনিয়নের শিয়রবর। আর মাকড়াইলে নদী ভাঙন পরিদর্শনে ছোটেন কিংবদন্তি।


প্রথমে নামেন শিয়রবর ঘাটে। যেখানে মধুমতী নদীর পাগলা ভাঙন গ্রাস করছে স্থানীয় মানুষের স্বপ্ন! এরপর ছুটে যান মাকড়াইল গ্রামের নদী ভাঙন দেখতে। নদীতে একের পর এক চাষি জমি,বসতভীটা ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নদীর গর্ভে বিলিন হয়ে যাচ্ছে। যার ভয়ংকর চিত্র নিজ চোখে অবলোকন করেন ম্যাশ। এ সময় তাকে ব্যথিত ও বিমর্ষ দেখা যায়!

স্থানীয় মানুষ কে তিনি সাহস যুগিয়ে বলেন,এখানে দশ কোটি টাকা ব্যয়ে বালুর বস্তা ফেলা হয়েছে। স্থায়ী সমাধানের জন্য প্রকল্প প্রনয়নের কাজ চলছে। ডিসেম্বরের যেকোন সময় পানি সম্পদ মন্ত্রী আসবেন নড়াইলের নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শন ও স্থায়ী সমাধানের পথ খুজতে।

সাধারণ মানুষ মাশরাফী কে পাশে পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে শতশত নারী-পুরুষ ও শিশুরা ঘিরে ধরে। এসময় আপ্লুত ক্যাপ্টেন বলেন,দুঃখ লাগে তখন, যখন মন্ত্রণালয়ে যায় তখন মন্ত্রী বলেন,মাশরাফী তোমার এলাকায় তো কোনো নদী ভাঙন নেই!আমি ভাবছি মন্ত্রী মহোদয় হয়তো রসিকতা করছেন,কিন্তু পরক্ষণে আমার ভুল ভাঙলো! মন্ত্রণালয়ে সারাদেশের নদী ভাঙনের যে তালিকা তাতে নড়াইলের নাম নেই!

আগে কোনো এমপি পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে নড়াইলের কোন নদী ভাঙন রোধে প্রকল্প প্রনয়ণে আবেদন করেনি! সরকারের জানায় ছিলো না যে, নড়াইলে নদী ভাঙন হয়।

এমতাবস্থায় কিংকর্তব্যবিমুড় মাশরাফী বিন মোর্তজা বলেন,আমার লোহাগড়ার এলাকার হাজারো মানুষ ভীষণ কষ্টে আছে! আমি দ্রুত এলাকার মানুষ কে এ-ই দুঃখ থেকে মুক্তি দিতে চাই, কেননা তারা আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। আমি দায়বদ্ধ তখন মন্ত্রী স্থায়ী সমাধানের উপর গুরুত্ব আরোপ করে ডিসেম্বরে নড়াইলের লোহাগড়া নদী ভাঙন এলাকা পরিদর্শনের ইচ্ছে পোষণ করেন। মধুমতী নদী ভাঙন নতুন কিছু নয়!

কিন্তু লোহাগড়ার নদী ভাঙনে আক্রান্ত মানুষের পাশে প‚র্বে কোনো জনপ্রতিনিধি এভাবে পাশে দাঁড়ায়নি! স্থায়ী সমাধানে এগিয়ে আসেনি কেউ। তখন ম্যাশ উপস্থিত সর্বসাধারণের উদ্দেশ্য বলেন,সাময়িক সমাধানের জন্য বালুর বস্তা ফেলার যে কার্যক্রম চলছে,সেগুলো স্থানীয় মানুষকে ভালোভাবে বুঝে নিতে হবে।

কাজে যাতে কেউ ফাঁকি বাজি না করতে পারে আপনাদের পাহারা দিতে হবে। সহযোগিতা করতে হবে কতৃপক্ষকে এ সময় মানবিক মাশরাফী উপস্থিত স্থানীয় মুরুব্বি ও তরুণদের মধ্যে তার পিএসের ভিজিটিং কার্ড ও নিজের ফোন নম্বর দিয়ে বলেন,আপনারা যে কোনো প্রয়োজনে আমার পিএসের কাছে ফোন দিবেন।

প্রয়োজনীয় তথ্য দিবেন আমি আমার সাধ্যমতো আপনাদের পাশে থাকবো ভোর সকালে সপ্নের নেতাকে ভালবাসায় সিক্ত করে বিদায় জানায় নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থের স্বীকার সহজ-সরল হাজার ও মানুষ গুলো। নড়াইলের, উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন নড়াইল-২ (লোহাগড়া-নড়াইল সদরের একাংশ) আসনের সাংসদ ও ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা। লোহাগড়া পাইলট উচ্চবিদ্যালয় চত্বরে এ সম্মেলন হয়।

সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মুন্সী আলাউদ্দিন। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। সাংসদ মাশরাফি বলেন, ‘আমার রাজনীতির বয়স মাত্র ১০ মাস। আমার জীবনে দেখা এটি প্রথম সম্মেলন।

আমার কষ্ট লাগে, দুঃখ পাই যখন দেখি সবাই নৌকার লোক। অথচ একে অপরের সঙ্গে দ্বন্দ্ব-বিভাজনে জড়িত। সবাইকে অনুরোধ করব, আপনারা ঐক্যবদ্ধ থাকুন। ঐক্যের মাধ্যমে আসুন আমার সবাই নড়াইলকে গড়ি, নড়াইলের উন্নয়নের জন্য কাজ করি। কেউ দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেবেন না। মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি দুর্নীতি, মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়ছেন। কিন্তু তৃণম‚ল পর্যায়ে আপনারা কী করছেন? আপনারা, আমরা যদি কুকর্ম করি, তাহলে তা প্রধানমন্ত্রীর ঘাড়ে পড়ে।’

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবদুর রহমান বলেন, ‘আওয়ামী লীগে যেমন লুটেরা আছে, তেমনি না খাওয়া ত্যাগী নেতা-কর্মীও আছে। ওই লুটেরাদের সঙ্গে খাঁটি আওয়ামী লীগের আপস চলে না। যারা টেন্ডারবাজি, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত; তাদের নেতা হিসেবে প্রশ্রয় দেবেন না। এখন সুসময়, অনেক বসন্তের কোকিল আসবে।

কিন্তু কোনো ইয়াবাখোর, টেন্ডারবাজ, সন্ত্রাসী ও অনুপ্রবেশকারীর এখন আওয়ামী লীগে জায়গা হবে না। তৃণম‚ল নেতাদের সৎ নেতৃত্ব বেছে নিতে হবে, যারা মাশরাফির নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধভাবে নড়াইল গড়বেন। দুর্নীতিমুক্ত নড়াইল জেলা হোক বাংলাদেশের প্রথম উদাহরণ। অপদিকে, নড়াইল প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে নড়াইল প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও সম্মাননা স্মারক উপহার দেন। মাশরাফি বিন মর্তুজা বলেন, নড়াইলের সার্বিক উন্নয়নে গণমাধ্যমকর্মীদের সহযোগিতা প্রয়োজন। নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এনামুল কবির টুকুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার), নড়াইল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কাপুড়িয়া কলেজের শিক্ষক শামীমুল ইসলাম টুলু, এ সময় অন্যান্য সাংবাদিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি অ্যাডভোকেট আলমগীর সিদ্দিকী, কাতিক দাস, নড়াইল কণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, ফিরোজ, মির্জা নজরুল ইসলাম, নড়াইল প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি ও শিক্ষার ফেরি আলা বলে পরিচিত সুলতান মাহামুদ খান, ফরহাদ খান, হাফিজুল নিলু, শরিফুল ইসলাম বাবলু, সুজয় বকসি, আসাদ সহ এ সময় অন্যান্য সাংবাদিক রাও উপস্থিত ছিলো।: নিরাপদ সড়ক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মোটরসাইকেল চালকদের মাঝে বিনাম‚ল্যে হেলমেট বিতরণ করেছেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সফল অধিনায়ক নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

সকাল সাড়ে ৯টায় নড়াইল সদর থানার সামনের সড়কে পাঠাও এর আয়োজনে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার সৌজন্যে এবং নড়াইল জেলা পুলিশ ও টিম তারুণ্য-১০০ এর সহযোগিতায় মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা ৫’শ মোটরসাইকেল চালকদের মাঝে এ হেলমেট বিতরণ করেন। হেলমেট বিতরণের আগে মাশরাফী বলেন, নিরাপত্তাই প্রথম’। নো হেলমেট নো ফুয়েল। আজ থেকে আশা করি ফুয়ের পেতে সমস্যা থাকার কথা নয়।

এখানে নড়াইল শহরে ৫০০ হেলমেট দিচ্ছে, এরপরও আমি আশা রাখছি ৫০০ হেলমেট যথেষ্ট নয়, আমরা চাই যে আরো কিছু হেলমেট পরে ইনশালল্লাহ আসবে।

পাঠাও এখানে চালু হেেয় যাবে। যাদের হেলমেট নেই তারা হেলমেট নিবেন। মাশরাফি বলেন, যারা হেলমেট পেলেন, তারা বাইক চালানোর সময় অবশ্যই ব্যবহার করবেন। হেলমেট নিয়ে ঘরে ফেলে রাখবেন না।

এ সময় তিনি পাঠাওকে ও পুলিশ সুপারকে স্পেশাল ধন্যবাদ জানান। এ সময় বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) বলেন, নড়াইলে ইতিমধ্যে ‘নো হেলমেট নো ফুয়েল’ কর্মস‚চি চালিয়ে আসছি। তারই অংশ হিসেবে সম্মানীত নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্যদের সৌজন্যে উঠাও আমাদের ‘নো হেলমেট নো ফুয়েল’কর্মস‚চিকে আরো বেগবান করার জন্য এগিয়ে এসেছেন। তিনি আরো বলেন, নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় সিসিটিভি স্থাপন হওয়ায় শহরে অপরাধ কমেছে, অপরাধীকে ধরতে সহায়তা করছে। এসময় পাঠাও এর অন্যান্য কর্মকর্তাগণ বক্তব্য রাখেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সদর থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন, নড়াইল কণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, টিম তারুণ্য-১০০ এর উদ্যোক্ততা রাসেল ,`বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রোনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। পাঠাও’ এর সিইও সাংবাদিকদের জানান, মাশরাফী ভাইয়ের অনুরোধে তার নড়াইল শহরে মোটর সাইকেল চালকরা যাতে নিরাপত্তায় চলাচল করতে পারে সে জন্য আমরা নড়াইলে পাঁচ’শ হেলমেট বিতরণ করছি।

এছাড়া আমরা এ নড়াইলে উঠাও এর কার্যক্রম দ্রুত চালু করবো। জানা গেছে, অ্যাপস ভিত্তিক বাইক রাইড শেয়ারিং পাঠাও এর পক্ষ থেকে ব্রান্ড অ্যাম্বাসেডর মাশরাফি বিন মর্তুজার অনুরোধে পাঁচশত হেলমেট বিতরণ করা হয়।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments



ঠাকুরগাঁওয়ে খাদ্য নিয়ন্ত্রক-পিআইও-ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৬ জন আটক….

প্রধান কার্যালয়ঃ বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com