বাংলাদেশের আর এক নক্ষত্রের বিদায়…

শনিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২২ | ৩:৩৭ অপরাহ্ণ |

বাংলাদেশের আর এক নক্ষত্রের বিদায়…
অনলাইন ডেস্ক রিপোর্ট / ফাইল ছবি...

বাংলাদেশের আর এক নক্ষত্র আওয়ামীলীগ উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আর নেই।

(ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাইলাইহি রাজিউন)।


শুক্রবার (২৯শে এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টা ৫৬ মিনিটে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর।

সাবেক এই নক্ষত্রের ছোট ভাই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেনের দপ্তর থেকে তাঁর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।


আবুল মাল আবদুল মুহিত লিভার ক্যান্সারে ভুগছিলেন। করোনার মধ্যে দেড় বছর আগে এই রোগ সম্পর্কে জানতে পারেন তিনি। গত বছর করোনায়ও আক্রান্ত হন আবুল মাল আবদুল মুহিত। ওই বছরের ২৯শে জুলাই তাঁকে ঢাকা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করানো হয়। পরে তিনি করোনামুক্ত হয়ে বাসায় ফেরেন। এর পর থেকেই তিনি শারীরিকভাবে অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়েন। দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ও বার্ধক্যজনিত জটিলতায় ভুগছিলেন তিনি।

আবুল মাল আবদুল মুহিতের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান, ও প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপিসহ আরো অনেকে এই বর্ষীয়ান নেতার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।


বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী আবুল মাল আবদুল মুহিতের জন্ম ১৯৩৪ সালের ২৫শে জানুয়ারি সিলেটে। তাঁর বাবার নাম আবদুল হাফিজ এবং মা সৈয়দা শাহার বানু।

পঞ্চাশের দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর করে যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নেন মুহিত। ছাত্রজীবনে সলিমুল্লাহ হল ছাত্রসংসদের ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। সক্রিয় ছিলেন ভাষা আন্দোলনেও। ১৯৫৬ সালে মুহিত যোগ দেন পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে (সিএসপি)। কূটনীতিকের দায়িত্বে তাঁকে পাঠানো হয় পাকিস্তানের ওয়াশিংটন দূতাবাসে। একাত্তরের জুন মাসে তিনি পাকিস্তানের পক্ষ ত্যাগ করে বাংলাদেশের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করেন।

১৯৭২ সালে পরিকল্পনাসচিবের দায়িত্ব পালনের পর ১৯৭৭ সালে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বহিঃসম্পদ বিভাগে সচিব হন মুহিত। ১৯৮১ সালে চাকরি থেকে স্বেচ্ছায় অবসরে গিয়ে ‘অর্থনীতি ও উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ হিসেবে’ কাজ শুরু করেন ফোর্ড ফাউন্ডেশন ও আইএফএডিতে।

১৯৮২-৮৩ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট এইচ এম এরশাদ সরকারের সময়ে প্রথমবারের মতো অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

দীর্ঘদিন বিশ্বব্যাংক ও জাতিসংঘের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পরামর্শক হিসেবে কাজ করার পর দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হন মুহিত। ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগের ‘দিন বদলের’ সরকারে অর্থ মন্ত্রণালয়ের হাল ধরেন মুহিত।

অর্থমন্ত্রী হিসেবে আবুল মাল আবদুল মুহিত ১২টি বাজেট উপস্থাপন করেন, যার ১০টি ছিল আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে। তার ছেড়ে দেওয়া আসন থেকে গত নির্বাচনে জয়ী হন ছোট ভাই ড. এ কে আবদুল মোমেন। মুহিত ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত শেখ হাসিনার সরকারের অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনের পর রাজনীতি থেকে অবসর নেন।

আবুল মাল আব্দুল মুহিত একজন খ্যাতনামা অর্থনীতিবিদ, রাজনীতিবিদ, লেখক ও ভাষাসৈনিক ছিলেন। অর্থমন্ত্রী হিসেবে জাতীয় সংসদে সর্বোচ্চ ১২টি বাজেট উত্থাপন করেছেন বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের অধিকারী সাবেক আমলা আবদুল মুহিত। বাংলাদেশের ইতিহাসে তিনি সবচেয়ে বেশি সময় অর্থমন্ত্রী ছিলেন।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, মুক্তিযুদ্ধ, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, ইতিহাস, জনপ্রশাসন এবং রাজনীতি নিয়ে ৪০টির মতো বই লিখেছেন মুহিত। জাতীয় পর্যায়ে গৌরবোজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ মুহিতকে ২০১৬ সালের স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করে সরকার। গত মার্চে জন্মভূমি সিলেট আসেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে তাঁকে গুণীশ্রেষ্ঠ সম্মাননা দেওয়া হয় তখন। জীবনের দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে তৃপ্ত ছিলেন সাবেক এই অর্থমন্ত্রী।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

বালিয়াডাঙ্গীতে কলেজ ছাত্রীকে ইভটিজিংয়ের দায়ে ২ বখাটের কারাদণ্ড…

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com