মেয়েদের ব্লাকমেইল করা গ্রামের রোমিও রানাকে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ

শনিবার, ০৩ মার্চ ২০১৮ | ১০:৫৭ পূর্বাহ্ণ |

মেয়েদের ব্লাকমেইল করা গ্রামের রোমিও রানাকে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ
মেয়েদের ব্লাকমেইল করা গ্রামের রোমিও রানাকে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ

নীলফামারীর সৈয়দপুরে এক সুন্দর-সুশ্রী যুবকের মুখাবয়বের আড়ালে থাকা অত্যন্ত নারীলোভী এক যুবককে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ।

নিজের এলাকার মেয়েদের প্রেমের সম্পর্কের ফাঁদে ফেলে তাদের সাথে শারীরিক সম্পর্ক তৈরী করাই যে যুবকের মূল উদ্দেশ্য এবার একটি ঘটনায় সে বখাটের মুখোশ খুলে গেছে। ছোটবেলা থেকেই লুকোচুরি স্বভাবের যুবক রানা আহমেদ (২১)। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রানার বেড়ে ওঠা দিনমজুর পরিবারে। অটোরিকসাচালক বাবার পরিবারে দুই ভাইয়ের মধ্যে সে ছোট। তার বাড়ি উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের কালিরডাংগা গ্রামে।

webnewsdesign.com

নিজ এলাকায় রানার চেহারা-সুরত আর চলাফেরা দেখে বোঝার উপায় নেই সে বখাটে। এলাকার মেয়েদের পেছনে ঘুরে প্রেম নিবেদন ছাড়া তার আর অন্য বদনাম নেই বললেই চলে। কিন্তু রাতের অন্ধকারে সে যেসব কর্মকান্ডে জড়িত ছিল, তা গ্রামবাসী কিংবা স্বজনরাও জানতেন না।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারী সৈয়দপুর থানায় দায়ের করা একটি মামলার সূত্র ধরে অনুসন্ধানে রানার বিরুদ্ধে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। অনুসন্ধান ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, কামারপুকুর ইউনিয়নের কালিরডাংগা গ্রামের অটোরিকসাচলক আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে রানা (২১) একই ইউনিয়নের এক অষ্টম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়ের সাথে প্রেমের সম্পর্ক তৈরী করে। এবং মোবাইল নম্বর বিনিময় করে ফোনালাপ করে।

একপর্যায়ে মিষ্টি মিষ্টি কথা বলে মেয়েটির সাথে বিভিন্ন আপত্তিকর ও অশ্লীল কথা বলে সেগুলো মোবাইলে রেকর্ড করে। সম্পর্কের সূত্রে মেয়েটির সাথে শারিরীক সম্পর্ক তৈরী করতে চায়। কিন্তু মেয়েটি লম্পট রানার কুমতলব বুঝতে পেরে প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় রানা তার বখাটে বন্ধুদের সাথে নিয়ে মেয়েটিকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে অশ্লীল কথা বলে কু-প্রস্তাব দিতে থাকে এবং রাজি না হলে তার সাথে বলা মোবাইলের সব কথা ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। এতেও মেয়েটি রাজি না হলে ডান্ডি নামক মাদকে আসক্ত বখাটে রানা গত ২০ ফেব্রুয়ারী বিকালে মেয়েটির বাসায় গিয়ে সরাসরি তার অশ্লীল ছবি ও রেকর্ড ফেসবুকসহ ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। এতেও মেয়েটির সাথে শারিরীক সম্পর্ক স্থাপনে ব্যর্থ হয়ে লম্পট রানা ২০ ফেব্রুয়ারী রাত আনুমানিক আড়াইটার সময় মেয়েটির বাসায় অন্য ছেলে ঢুকেছে এমন অভিযোগ তুলে বাসায় প্রবেশ করে মেয়েটিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। পরে মেয়েটির চিৎকারে তার বাবা-মা এগিয়ে এসে বখাটে রানাকে আটক করে। কিন্তু পরক্ষণে স্থানীয় কিছু অরাজক ও দুর্দান্ত প্রকৃতির ব্যক্তির সহযোগিতায় কৌশলে সে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

এ ঘটনার পর সৈয়দপুর থানায় মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে রানাকে প্রধান আসামী এবং আরো ৩জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৭-৮জনসহ নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১০/৩০ ও তৎসহ পেনালকোড ৫০৬ মোতাবেক একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ২০, তাং ২৫/২/১৮। মামলা দায়েরের পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৩নং আসামী একটি এনজিও’র নৈশপ্রহরী আলামিন হোসেন রুবেল (৪০) নামের একজনকে আটক করে এবং তার দোকানে থাকা কম্পিউটারে সংরক্ষণকৃত রেকর্ডসমূহ উদ্ধার ও জব্দ করে।

মামলার প্রধান আসামীসহ অন্যদের এখনও আটক করতে পারেনি পুলিশ। এ ব্যাপারে সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজাহান পাশা বলেন, একজনকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামীরা পলাতক রয়েছে। তাদেরও ধরতে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে। খুব শীঘ্রই তারা আইনের আওতায় আসবে বলে জানান তিনি। যেভাবে মেয়েদের ফাঁদে ফেলতো এই রানা: টানাপোড়েনের সংসারে নুন আনতে যার পান্তা ফুরায় সেই পরিবারের রানার পোশাক-আশাক বা চলাফেলার স্টাইল দেখলে যে কারো বুঝতে কষ্ট হবে রানা নিম্নশ্রেণীর পরিবারের সন্তান। নিজের সুশ্রী চেহারা ও দামী পোশাক এই দুইকেই হাতিয়ার করেই মেয়েদের পটাতো বখাটে রানা। এরপর তার ফোন নং নিয়ে বিভিন্ন কায়দায় সুসম্পর্ক তৈরী করে অশ্লীল ও অন্তরঙ্গ কথা বলে ও ফোনে রেকর্ড করে। এরপর সেগুলো ওই মেয়ের পরিবারের সদস্যদের কাছে বা এলাকার সবার কাছে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে তাদের সাথে শারীরিক সম্পর্ক তৈরী করে। সেটাও আবার মেয়ের বাড়িতেই! মেয়েটি যখন ব্লাকমেইলের শিকার হয়ে রানার সব কথা পালন করতে বাধ্য হয় তখনই সে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে। এক্ষেত্রে মেয়েটিকে আগে থেকেই ঘুমের ওষুধ সরবরাহ করে লম্পট রানা। সেটি আবার খাবারের সাথে মিশিয়ে তাদের বাবা-মাকে খাওয়ায় মেয়েটি।

রাত গভীর হবার সাথে সাথে যখন মেয়েটির বাবা-মাসহ বাড়ির সবাই ঘুমে বিভোর ঠিক তখনই মেয়েটির অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও তারই সহযোগিতায় মেয়েটির রুমে প্রবেশ করে তার সাথে উপর্যুপূরি শারীরিক সম্পর্ক করে কুলাঙ্গার এই রানা। তার এমন ন্যক্করজনক ও বীভৎস অপরাধের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন সচেতনমহল

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com