রাজশাহীতে জমি নিয়ে দু-পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৯, বাড়ি ভাংচুর

শুক্রবার, ২৯ জুন ২০১৮ | ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ |

রাজশাহীতে জমি নিয়ে দু-পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৯, বাড়ি ভাংচুর

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাঘায় জমি নিয়ে দুই পক্ষের দফায়-দফায় সংঘর্ষে এক পক্ষের বাড়ি ভাংচুরসহ উভয় পক্ষের ৯ জন আহত হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।  বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার সময় উপজেলার ফতেপুর বাইসা গ্রামে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে ঘটনা স্থালে পুলিশ লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে করে।

এর মধ্যে মালেক নামে এক (অবসরপ্রাপ্ত) সেনা কর্মকর্তার অবস্থা আশঙ্কা জনক। তাকে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

webnewsdesign.com

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ফতেপুর গ্রামের মৃত চয়েন প্রামানিকের ছেলে আবদুল মালেক ও আমির আলীর ছেলে আনছার আলীর মধ্যে বসতভিটার জমি নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে দ্বন্দ্ব চলছিল। এই দ্বন্দ্বের জের ধরে বৃহস্পতিবার সকালে উভয়ের মধ্যে কথা কাটা-কাটি শরু হয়। ঘটনার এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ বাধে। এই সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৯ জন আহত হয়।

আবদুল মালেকসহ তার পক্ষের আহতরা হলেন, তার স্ত্রী মর্জিনা বেগম ও ভাই বিচ্ছাদ আলী ওরফে বিশু। এবং আনছার আলীসহ তার পক্ষের আহতরা হলেন স্ত্রী নাজমা বেগম, ছেলে নাজমুল হোসেন, রবিন হোসেন, মনোয়ারা বেগম, কহিনুর বেগম ও রতনা বেগম। আহতদের উদ্ধার করে বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এরমধ্যে আবদুল মালেকের অবস্থা বেগতিক দেখে কর্তব্যরত ডাক্তার তাৎক্ষণিক তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। ডাক্তার জানান, ধারাল অস্ত্রের আঘাতে আব্দুল মালেকের মাথার রগ কেটে গেছে। তার অবস্থা আশঙ্কা জনক।

এ বিষয়ে আবদুল মালেকের স্ত্রী মর্জিনা বেগম বলেন, আমার ক্রয় করা জমিতে বাড়ি দিয়েছি। এই বাড়ি তাদের জমিতে পড়েছে বলে বারবার বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করে। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে কয়েকবার শালিশ হয়। কিন্তু আমরা শালিশ না মেনে আদালতের স্বরনাপূর্ণ হয়। আর এ কারণে তারা জোর পূর্বক জমি দখল করতে আসে এবং বাড়িঘর ভাংচুর করে লুটপাট এর চেষ্টা চালায়। এক পর্যায় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

অপর দিকে আনছার আলী বলেন, আমার জমির উপর জোর পূর্বক বাড়ি তৈরী করে বসবাস করছে আবদুল মালেক। আমি বাড়ি সরিয়ে নিতে বললে উল্টো অকথ্যভাষায় সে আমাকে গালি দেয়। বিষয়টি আমি গ্রামবাসীকে জানায়। কিন্তু সে গ্রামের লোকজনের করা শালিস ও অমান্য করে।

বাউসা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান বলেন, এই জমি নিয়ে প্রায় ১৫ বছর থেকে দ্বন্দ্ব চলছে। এনিয়ে কয়েকবার শালিসও হয়েছে। একপক্ষ মানলে আরেক পক্ষ শালিম মানে না। ফলে এই নিয়ে উভয়ের মধ্যে অশান্তি লেগেই আছে। তবে আবদুল মালেক ও আনছার আলী একে অপরের চাচাত ভাই বলে তিনি জানান।

বাঘা থানা উপ-পুলিশ পরিদর্শক শাহিদা বেগম বলেন, সংঘর্ষের ঘটনা জানার পর ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেছি। তবে এই বিষয়ে কেউ কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ করলে পূণরায় তদন্ত সাপেক্ষে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com