রাজশাহীতে মৌসুম ফুরানোর সঙ্গে বাড়ছে আমের দাম

শনিবার, ০৪ আগস্ট ২০১৮ | ৮:৩৯ অপরাহ্ণ |

রাজশাহীতে মৌসুম ফুরানোর সঙ্গে বাড়ছে আমের দাম
রাজশাহীতে মৌসুম ফুরানোর সঙ্গে বাড়ছে আমের দাম

রাজশাহী প্রতিনিধি: আমের মৌসুম প্রায় শেষের পথে। ফজলীও শেষের পথে। সরবরাহ কমে যাওয়ায় বাজারে এখন ফজলী বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা কেজি। অথচ এ আমই কয়েক দিন আগে বিক্রি হয়েছে মাত্র ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি করে। অনেক সময় ব্যবসায়ীদের এই আমই বিক্রি করতে হয়েছে পানির দামে। গোপালভোগ, খিরসাপাত, ল্যাংড়া, মোহনভোগ, আম্রপালিসহ অধিকাংশ আঁঠি আম শেষ হয়ে গেছে। বাজারে আসতে শুরু করেছে আশ্বিনা আম।
রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের তথ্য অনুযায়ী, ইতোমধ্যে ৯০ ভাগই আমই প্রায় শেষ হয়ে গেছে। অবশিষ্ট বাকি রয়েছে ১০ ভাগ আম। যার মধ্যে ৯ ভাগই রয়েছে আশ্বিনা আম। আর বাকি ১ ভাগ হচ্ছে ফজলী আম।
রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানায়, এবার আমের ফলন ভালো হওয়ায় মানুষ আম খেয়েছে সস্তা দরে। যা কয়েক বছরের মধ্যে হয়নি। অথচ গত বছর যে খিরসাপাত, গোপালভোগ, ল্যাংড়া আম বাজারে বিক্রি হয়েছে ৩ হাজার, সাড়ে ৩ হাজার টাকা মণ সে আম এবার বিক্রি হয়েছে ১২শ থেকে ১৬শ-১৭শ টাকা মণ দরে। এমন কি শহরতলীতে ঢাকিতে বিক্রি হয়েছে ২০-২৫ টাকা কেজি করে।
এবার সাধারণ ফজলী ১২শ আর সুরমা ফজলী ১৬শ টাকা মণ দরে বিক্রি হয়েছে কয়েক দিন আগেও। গত বছর ঐ ফজলী বিক্রি হয়েছে ২ হাজার টাকার বেশি দরে। আর এবার নগরীর মার্কেটগুলোতে ছিল আমের ছাড়াছড়ি। এছাড়াও বাইরে থেকেও রাজশাহীতে এসেছে হাঁড়িভাঙাসহ নাম না জানা বিভিন্ন জাতের আঁঠি আম।
এবার রাজশাহীতে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে আম উৎপাদন। ২০১৭ তে যেখানে আমের আবাদ হয়েছিল ১৭ হাজার ৪২০ হেক্টর জমিতে। সেখানে এবার আমের আবাদ হয়েছে ১৭ হাজার ৪৬৩ হেক্টরে। গতবারের চেয়ে এবার ৪৩ হেক্টর বেশি জমিতে আমের আবাদ হয়েছে। ২০১৭ সালে যেখানে আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ২ লাখ ৮ হাজার ৬৬৫ মেট্রিক টন। সেখান ২০১৮ সালে আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ লাখ ৯ হাজার ৫৫৬ মেট্রিক টন। গতবারের চেয়ে এবার ৮৮১ মেট্রিক টন আম বেশি উৎপাদন হয়েছে।
এটা কাগজ কলমের হিসাবে হলেও এবার আমের ফলন আরো ভালো হওয়ায় রাজশাহীর আমের বাজারে ছিল রমরমা। এ অভিমত কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরও সমর্থন করেছে। আমের মৌসুমে রমজান মাস হওয়ায় মানুষ অল্প কম খেয়েছে এবং একই সময়ে বেশি আম বাজারে সরবরাহ হওয়ায় চাষি ও ব্যবসায়ীরা আমের দাম অনেক কম পেয়েছে। এক দিকে উৎপাদন বেশি, বাজারে সরবরাহ বেশি আর রমজান মাসের কারণে আম খাওয়া কমে যাওয়া, এই তিনটি কারণে আম চাষি ও ব্যবসায়ীদের লোকসান গুণতে হয়েছে বেশি বলে জানিয়েছেন আম ব্যবসায়ী বিসমিল্লাহ ইন্টারপ্রাইজের সত্ত্বাধিকারী।
এখনো বাজারে আসতে বাকি রয়েছে প্রায় ১ হাজার মেট্রিক টন আম। এ তথ্য রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের।
আম মৌসুম প্রায় শেষ হলেও যা অবশিষ্ট আম আছে তাও প্রচুর। এছাড়াও বাজারে কিছু কিছু আম্রপালি পাওয়া যাচ্ছে একশ টাকা কেজি দরে।
ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা গেছে, বাজারে আশ্বিনা আসতে শুরু করলেও পর্যাপ্ত নয়। আগামী এক দেড় মাস ধরে এ আম বাজারে কেনাবেচা হবে। বাজারে আশ্বিনা এখন বিক্রি হচ্ছে ৬০-৭০ টাকা কেজি দরে। আর গ্রামগঞ্জের হাটবাজারে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে।
আশ্বিনা আম রাজশাহী জেলার বাঘাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে বেশি হয়ে থাকে। অন্যান্য আমের মতো সুস্বাদু না হলেও এ আম দিয়ে নানা ধরনের সুস্বাদু খাদ্য তৈরি হয়ে থাকে। এ আমের ফলনও বেশ ভালো। বাজারে এ আম ১৫শ থেকে ৩২শ টাকা মণ বিক্রি হচ্ছে।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

webnewsdesign.com

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com