ব্যবহার করা হচ্ছে আগের কাগজপত্র;;

রাজশাহীর সড়কে লক্করঝক্কর যানবাহন

বুধবার, ১৫ আগস্ট ২০১৮ | ৭:০০ অপরাহ্ণ |

রাজশাহীর সড়কে লক্করঝক্কর যানবাহন
ব্যবহার করা হচ্ছে আগের কাগজপত্র

রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহী নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টের পাশেই অস্থায়ীভাবে দাঁড়িয়ে রয়েছে বেশ কয়েকটি থ্রি-হুইলার গাড়ি ইমা। এই ইমা গাড়ি নগরীর জিরোপয়েন্ট থেকে বানেশ্বর পর্যন্ত চলাচল করে। সেই গাড়ির চালককে সহায়তাকারী হেলপার ডেকেই চলেছে ‘বানেশ্বর’ ‘বানেশ্বর’ বলে।
গাড়ির চালক রাকিবুলকে জিজ্ঞেস করা হয়, এই গাড়ির রুট পারমিট আছে কি না, তিনি বলেন, নাই। ড্রাইভিং লাইসেন্স, তা-ও নাই। গাড়ির কাগজপত্র আছে, তা-ও নাই। তারপরও গাড়ি চালান কীভাবে? চালকের উত্তর, ম্যানেজ করে চলতে হয়।
আরেক ইমা চালককে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন, গাড়ির রুট পারমিট নাই। তারপরও চালাই। তবে শিক্ষানবিশ লাইসেন্স নিয়ে মূল লাইসেন্সের জন্য বিআরটিএতে আবেদন করেছি। আশা করছি লাইসেন্স পেয়ে যাব।
অথচ সরকারি নির্দেশনা আছে, মহাসড়কে কোনো থ্রি-হুইলার গাড়ি চলতে পারবে না। সেইজন্য সেইসব গাড়ির রুট পারমিটও নেই। তারপরও দিব্যি পুলিশের নাকের ডগায় গাড়িগুলো সদর্পে চলাচল করছে।
একই অবস্থা দেখা গেল বাস-ট্রাক, সিএনজি ও মোটরসাইকেল চালকদের ক্ষেত্রেও। ট্রাফিক পয়েন্টগুলো ব্যতিরেকে হেলমেট ছাড়াই সদর্পে ঘুরে বেড়াচ্ছেন মোটরসাইকেল চালকরা। সড়কে বেপরোয়া গতিতে চলছে বাস-ট্রাক। লোকাল রুটগুলোতেও চলছে লক্কড়ঝক্কড় বাস। তবে পুলিশের কড়াকড়ির কারণে লক্কড়ঝক্কড় অনেক বাস ও ট্রাককে নতুনভাবে বডি তৈরি করে রং করতে দেখা গেল। সিটি করপোরেশনের ভেতরই বাস-ট্রাকের বডি তৈরি ও রং করার বেশ কয়েকটি গ্যারেজ আছে। সেগুলো ঘুরে দেখা গেল, সেই গ্যারেজগুলোতে দ্রুততার সাথে কাজ চলছে বডি তৈরি করে রং করার কাজ।
নগরীর নতুন ভদ্রা এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, ‘রোড রয়েলস’ নামের একটি বাসের নতুন বডি তৈরির কাজ চলছে। সেই বাসটি ঢাকা-রাজশাহী চলাচল করতো। দুর্ঘটনায় পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় নতুনভাবে ঝালাই করে বডি তৈরি করা হচ্ছে। সেখানে আরো অনেক বাসেও রং করে নতুন করে তৈরি করা হয়েছে।
ঝালাই ও রং শ্রমিকরা জানালেন, এইখানে নতুনভাবে বডি তৈরি করে রং করে সোজা সড়কে নামানো হয়। একজন শ্রমিক জানালেন, এসব গাড়ির রুট পারমিট ও ফিটনেস নেই। পুলিশের কড়াকড়ির কারণে নতুনভাবে রং করে আবার সড়কে নামানো হচ্ছে। আলাদাভাবে রুট পারমিট ও ফিটনেস নেয়া হবে না।
তবে গাড়ির মালিক জানালেন, এই গাড়ির রুট পারমিট ও ফিটনেস নেয়া আছে। কিছুটা পুরাতন হয়ে যাওয়ায় বডি নতুনভাবে তৈরি করে ও তাতে রং করে সড়কে নামানো হচ্ছে। আগের রুট পারমিট ও ফিটনেস দিয়েই চালানো হবে।
ভদ্রা মোড় থেকে নওদাপাড়া বাস টার্মিনালে যেতে খানকাহ মোড় নামের একটি জায়গায় রয়েছে আরো কয়েকটি বাস-ট্রাকের ঝালাই করে বডি তৈরি ও রং করার গ্যারেজ। সেখানে গিয়ে একটি গ্যারেজে দেখা যায়, খুবই লক্কড়ঝক্কড় একটি বাসের বডি তৈরি করা হচ্ছে।
শ্রমিকরা জানালেন, বাসটি রং করে আবার মহাসড়কে চালানো হবে। ঈদের আগেই সড়কে বাসটি নামানোর কথা ছিলো। কিন্তু কাজ সম্পূর্ণ না হওয়ায় নামানো যায়নি। তবে ঈদের পরেই বাসটি চলাচল করবে।
শ্রমিকদের কাছ থেকেই জানা গেল, বাসটির নাম ‘সওদাগর’। নওগাঁর রুটে চলাচল করতো। দুর্ঘটনায় পড়ে বাসটি মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই নতুনভাবে বডি তৈরি করা হচ্ছে। বাসটির আর রুট পারমিট নেওয়ার দরকার নেই। আগের রুট পারমিটেই বাস চলাচল করবে।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটিÑবিআরটিএর রাজশাহী বিভাগের উপ-পরিচালক (ইঞ্জি.) শেখ আশরাকুর রহমান বলেন, প্রতি বছর গাড়ির রুট পারমিট ও ফিটনেস পরীক্ষা করতে হয়। ফলে আগের কাগজে গাড়ি সড়কে নামালেও এক বছরের মধ্যে আবার সেই গাড়ির কাগজপত্র নবায়ন করতে বিআরটিএতে আসতেই হয়।
সড়কের নৈরাজ্যের কারণ হিসেবে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ও রিকশাকেও দায়ী করা হয়। সেইসব যানবাহনের অধিকাংশ নিবন্ধনহীন। তারপরও দেদারসে নগরীর ভেতরে চলছে সেসব গাড়ি। সেই গাড়ি যত্রতত্র পার্কিংও করা হচ্ছে। তবে অটোরিকশা চালকরা বলছেন, পার্কিংয়ের নির্দিষ্ট স্থান না থাকায় তাদের বাধ্য হয়ে যেখানে সেখানে গাড়ি পার্কিং করছে।
মঙ্গলবার শেষ হয় ট্রাফিক পুলিশের বিশেষ সেবা সপ্তাহ। ১০ দিনের এই ট্রাফিক পুলিশ সপ্তাহে সিটিতে মোট তিন হাজার ৫৫৬টি মামলা দায়ের করা হয়। আটক করা হয় ১৩৯টি যানবাহন। যার মধ্যে মোটরসাইকেল, বাস ও সিএনজি রয়েছে। তবে আটককৃত যানবাহনের মধ্যে বেশিরভাগ মোটরসাইকেল। আর জেলা পুলিশের উদ্যোগে ৮২০টির মতো মামলা ও ৪০০টির মতো যানবাহন আটক করা হয়েছে।
নগর পুলিশের মুখপাত্র সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম জানান, এই অভিযানকে আমরা ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। কারণ ট্রাফিক পুলিশ সপ্তার কারণে জনগণের মধ্যে বিশেষ করে যারা মোটরসাইকেল চালায় তাদের মধ্যে হেলমেট পরার প্রবণতা বেড়ে গেছে। এ অভিযান আগামীতেও অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।
এদিকে পুলিশের কড়াকড়ির কারণে বিআরটিএ কার্যালয়েও ভিড় বেড়েছে গ্রাহকদের। গত আট দিনে প্রায় দুই হাজার আবেদন পড়েছে বিআরটিএ কার্যালয়ে। এর মধ্যে শিক্ষানবিশ ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন পড়েছে ৫৪০টি, লাইসেন্সের মূল আবেদন পড়েছে ৪৯০টি, লাইসেন্স নবায়ন ৩৩৫টি ও ফিটনেসের আবেদন ২৪০টি।

আপনার মুল্যবান মতামত দিন......

comments

webnewsdesign.com
অভিনব পদ্ধতিতে পাচার কালে ১৫টি মোবাইল উদ্ধার…

প্রধান কার্যালয়: শিমুল লজ, ১২/চ/এ/২/৪ (২য় তলা), রোড নং ৪, শেরেবাংলা নগর,শ্যামলী,ঢাকা‌.
বার্তা বিভাগ-01763234375 অথবা 01673974507, ইমেইল- sangbadgallery7@gmail.com

আঞ্চলিক কার্যালয়: বঙ্গবন্ধু সড়ক, আধুনিক সদর হাসপাতাল সংলগ্ন, বাসস্ট্যান্ড, ঠাকুরগাঁও-৫১০০

2012-2016 কপি রাইট আইন অনুযায়ী সংবাদ-গ্যালারি.কম এর কোন সংবাদ ছবি ভিডিও কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া অন্য কোথায় প্রকাশ করা আইনত অপরাধ

Development by: webnewsdesign.com